স’হবাসে না’রীদের কিভাবে উ’ত্তেজিত করা যায় এ সংক্রান্ত অনেক আর্টিকেল রয়েছে। না’রীকে যৌ’ন মি’লনে জাগিয়ে তোলার জন্য পুরু’ষদের কিছু কলাকৌশল অবলম্বন করা ভালো। তাতে তারা দ্রু’ত মি’লনের জন্য প্রস্তত হয়।

এখানে এ সংক্রান্ত কিছু টিপস দেয়া হলো :-

১. মি’লনের সময় না’রীদের মুখ, কপাল, গাল ইত্যাদি স্থানে ঘন ঘন চু’ম্বন করা ও ধীরে ধীরে ঘ’র্ষণ করা।

২. স’ঙ্গ’মের পূর্বে না’রী দে’হের বিভিন্ন স্থান স্পর্শ করলে, ধীরে ধীরে নাড়াচাড়া করলে কাম উ’ত্তেজনা জাগে।

৫. প্রয়োজন হ’লে ধীরে ধীরে আ’ঘা’তকরা, দংশন করা বা নি’পীড়ন করা চলে।

৬. স’হবাসের আগে উপরোক্ত বি’ষয়ে স্ত্রী’কে ভালভাবে উ’ত্তেজিত কারা একান্ত আবশ্যক-অন্যথায় স্ত্রীর অতৃ’প্তি থেকে যেতে পারে।

না’রীর উ’ত্তেজনার লক্ষণ :-

না’রী উ’ত্তেজিত হ’লে তার কি কি লক্ষণ পেতে পারে সেগু’লির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো –

১. না’রী উ’ত্তেজিত হ’য়ে পড়লে এবং কামবিহ্বল হলে তার দু’টি চোখ অর্দ্ধ’নিমীলিত ও র’ক্তবর্ণ ধারণকরে।

২. জো’রে জো’রে নিশ্বাস পড়তে থাকে।

৩. চেহারার মধ্যে উ’ত্তেজনার ভাব স্পষ্ট ফুটে ওঠে।

৪. হাত পা শিথিল হ’য়ে পড়ে।

৫. চোখ বুজে থাকতে চায়।

৬. তার লজ্জা কমে যায়, পুরু’ষ তার অ’ঙ্গস্পর্শ করলে সে তাতে বা’ধা দেয় না।

৭. পুরু’ষ তার গো’পন স্থানে হাত দিলে বা চা’প দিলে সে তা উপভোগ করে।

৮. সব রকম ভ’য়, সঙ্কোচ কাটিয়ে সারাটা দে’হই সে পুরু’ষকে অর্পণ করে।

না’রীর তৃ’প্তির লক্ষণ :-

না’রী যৌ’ন তৃ’প্তি লাভ করলে তার মধ্যে যে লক্ষণগু’লি প্রকাশ পায় তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো –

১. তাদের দে’হ নুইয়ে পড়ে।

২. সারাটা দে’হে যেন অবসান আসে।

৩. দ্রু’ত হৃৎস্পন্দন হ’তে থাকে।

৪. আবেশে চোখ বুজে থাকে।

৫. যো’নি থেকে রসস্রাব নির্গত হয়।

৬. না’রীর সারা দে’হে পুনঃপুনঃ শিহরণ হতে থাকে।

৭. অনেকে পূর্ণ তৃ’প্তির আবেশে অজ্ঞান পর্যা’প্ত হ’তে পারে এমন ঘ’টনাও জানা যায়।

৮. ধীরে ধীরে গোঁ গোঁ বা প্রা’ণীর অনুরূপ শব্দ বের হ’তে পারে।

৯. সে পুরু’ষকে জো’র করে বুকে চে’পেও ধরে রাখতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here