উত্তরাখণ্ডের শিল্প নগরী কাশীপুর … সম্প্রতি সেখানকার একটি চাঞ্চ’ল্যকর ঘ’টনা সামনে উঠে এসেছে যা স্বা’মী-স্ত্রী’’র স’ম্পর্কের ম’র্যাদাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।

শহরে বসবাসরত এক যুবকের স্ত্রী’’ বিয়ের পরেও শ্বশুরবাড়িতে বাস করছিলেন না। মেয়েটি তার বাপের বাড়ি থাকত। এদিকে, যুবক জানতে পারেন তার স্ত্রী’’ একজন কল’গার্ল তা জানতে পেরে হতবাকও হন তিনি।

কিন্তু মন মানতে চাইছিল না, শেষে যুবকটি সি’দ্ধান্ত নেয় এই বি’ষয়ে সত্যতা খুঁজে বের করার।তিনি দালা’লের নাম্বারে ফোন করেন এবং তারপর হোয়াটসঅ্যাপে কল’গার্লকে কল করেছিলেন,

তার স্বা’মী কল’গার্ল হিসাবে তাঁর সামনে এসে উপস্থিত মেয়েটিকে দেখে হতবাক হয়ে যান। যুবকের স্ত্রী’’ কল’গার্ল হয়ে তাঁর সামনে এসে দাঁড়ান।

মেয়েটির একটি বান্ধবীও রয়েছে। কিছুদিন আগে মেয়েটির বান্ধবীর সাথে মা’রামা’রি হয়েছিল। যার পরে ম’হিলার বান্ধবী স্বা’মীকে ফোন করে তার স্ত্রী’’র কল’গার্ল স’ম্পর্কে অবহিত করেন।

যুবকটি আরও জানতে পেরেছিল যে তার স্ত্রী’’ শ্যামাপুরমে বসবাসকারী এক ম’হিলার মাধ্যমে কাজ করে। বান্ধবীই তাকে দালা’লের নাম্বার দিয়েছিল।

যুবকটি দালা’লের কাছে গেলে তিনি যুবকের কল’গার্লের ফটো হোয়াটসঅ্যাপে পাঠিয়েছিলেন, যুবকের স্ত্রী’’র ছবি সহ। যুবক তার স্ত্রী’’র ছবি পছন্দ করে চুক্তিটি নিশ্চিত করেন।

মেয়েটি নির্দিষ্ট ঠিকানায় পৌঁছে যায়, কিন্তু সেখানে একজন গ্রাহক হিসাবে তার স্বা’মীকে দেখে তার পায়ের নিচের মাটি সরে যায়। দ্ব’ন্দ্বের পরে দুজনের মধ্যে ল’ড়াই হয়।

বি’ষয়টি পু’লিশে পৌঁছেছে। ভুক্ত’ভোগী স্বা’মী এসপি রাজেশ ভট্ট’কে তার যন্ত্র’ণার কথা জানিয়েছিলেন, আর স্ত্রী’’ স্বা’মীর সাথে তার বান্ধবীর স’ম্পর্কের অ’ভি’যোগ করেছেন। বি’ষয়টি এখন পু’লিশের কাছে, এএসপি মা’মলার তদ’ন্তের জন্য বলেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here